ড. কামাল হোসেনের দুঃখ প্রকাশ

অনলাইন ডেস্ক ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

ড. কামাল হোসেন। ফাইল ছবিমিরপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে জামায়াত নিয়ে প্রশ্ন করায় গতকাল শুক্রবার সাংবাদিকের ওপর ক্ষোভ প্রকাশ করেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন। এ ঘটনার পর এক বিবৃতিতে দুঃখ প্রকাশ করেছেন তিনি।

বিবৃতিতে ড. কামাল হোসেন বলেন, তিনি প্রতিবছরের মতো বুদ্ধিজীবী দিবসে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে মিরপুরের স্মৃতিসৌধে গিয়েছিলেন। শহীদ বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে তাঁর অনেক ঘনিষ্ঠ বন্ধুও ছিলেন। ১৯৭২-৭৩ সালে বঙ্গবন্ধুর নির্দেশনায় স্বাধীনতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের জন্য প্রণীত আইনগুলোর সঙ্গে জড়িত থাকতে পারা তাঁর কাছে সব সময়ই বিশেষ আবেগ ও অনুভূতির বিষয়।

ড. কামাল বলেন, গতকাল শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের পর স্মৃতিসৌধের বেদিতে দাঁড়িয়ে তিনি বলেছিলেন, ‘কত মেধাবী সন্তান হারিয়ে তবে স্বাধীনতা পেয়েছি।’ সে সময় হঠাৎ করেই তাঁর কাছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে জামায়াতের অবস্থান নিয়ে জানতে চাওয়া হয়। ড. কামাল বলেন, তিনি তাৎক্ষণিকভাবে সবিনয়ে জানান, বুদ্ধিজীবী দিবস গভীর অনুভূতির বিষয়। তিনি এই দিনে এখানে এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে চান না। সাংবাদিক আবারও একই প্রশ্ন করলে তিনি একই মনোভাব প্রকাশ করেন।

ড. কামাল বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে গতকালের পরিস্থিতির বর্ণনা দিতে গিয়ে বলেন, ‘ওই মনোভাব প্রকাশ করার পর ‘তৃতীয়বার ভিড়ের মধ্যে থেকে অনবরত দুই থেকে তিনবার “জামায়াত জামায়াত” শব্দ শুনতে পাই। তখন আমার খুবই খারাপ লেগেছিল এবং আমি প্রশ্নকর্তাকে থামানোর চেষ্টা করেছিলাম। আমার বক্তব্য কোনোভাবে কাউকে আহত বা বিব্রত করে থাকলে আমি আন্তরিকভাবে দুঃখিত।’

ড. কামাল বলেন, ‘আমি সারা জীবন সংবাদক্ষেত্রের স্বাধীনতা ও সাংবাদিকদের অধিকার প্রতিষ্ঠার লড়াইয়ে শামিল থেকেছি।’

ড. কামাল বলেন, ‘আশা করি, জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানেরা তাঁদের জীবনের বিনিময়ে যে ধর্মনিরপেক্ষ বাংলাদেশ নির্মাণের স্বপ্ন দেখেছিলেন, তা আমরা সবাই মিলে গড়তে সক্ষম হব।’

শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে গতকাল ড. কামাল যখন বের হচ্ছিলেন, তখন সাংবাদিকেরা তাঁর কাছে বুদ্ধিজীবী দিবসের প্রতিক্রিয়া জানতে চান। ড. কামাল বলেন, ‘শোষণমুক্ত সুন্দর সমাজের জন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি। স্বাধীনতার স্বপ্নকে বাস্তবায়নের বিরুদ্ধে যারা কাজ করছে, লোভ-লালসা নিয়ে লুটপাট করছে, তাদের হাত থেকে দেশকে মুক্ত করবই।’

এরপর ড. কামাল বের হতে যাচ্ছিলেন। এ সময় টেলিভিশনের একাধিক সাংবাদিক স্বাধীনতার বিরোধিতাকারী দল জামায়াতে ইসলামীর বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। জবাবে ড. কামাল বলেন, শহীদ মিনারে (স্মৃতিসৌধে) এসব বিষয়ে কোনো কথা তিনি বলবেন না।

এরপরও সাংবাদিকেরা প্রশ্ন করতে থাকেন। একজন বলেন, জামায়াতের নিবন্ধন বাতিল হয়েছে। তারপরও তারা ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে নির্বাচন করছে। এ সময় রেগে গিয়ে ড. কামাল বলেন, ‘প্রশ্নই ওঠে না। বেহুদা কথা বলো। কত পয়সা পেয়েছ এই প্রশ্নগুলো করতে? কার কাছ থেকে পয়সা পেয়েছ? তোমার নাম কী? জেনে রাখব তোমাকে। চিনে রাখব। পয়সা পেয়ে শহীদ মিনারকে অশ্রদ্ধা করো তোমরা। আশ্চর্য!’

এ পর্যায়ে আরেকজন সাংবাদিক আবার প্রশ্ন করেন। তখন ড. কামাল ধমক দিয়ে বলেন, ‘শহীদদের কথা চিন্তা করো। হে হে হে হে করছ! শহীদদের কথা চিন্তা করো। চুপ করো। চুপ করো। খামোশ।’

মন্তব্য

  • image

    Pannu Husnain

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    You are great sir, for the first time in Bangladesh as long as remember. You could do it becoz you participated in independence war, formulated constitutions and love democracy. Many things to learn for the politicians from your apology.

  • image

    Mir Md Mofazzal Hossain

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    একটাও স্বাধীনতা বিরোধী ব্যক্তি ক্ষমতায় রেখে স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছর পূর্তি দেখতে চাই না। মৌলবাদী, যুদ্ধাপরাধী কিংবা জঙ্গীদের শাসন দেখার জন্যে ৩০লক্ষ শহীদ আর ২লক্ষ মা-বোন ইজ্জত দেন নাই!রাজাকার জামাত-শিবিরের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে জাতীয় সংসদকে কলঙ্কিত করবেন না। শুধুমাত্র এই শর্তে আপনাকে এদেশের তরুন সাংবাদিক সমাজ ক্ষমা করতে পারে।

    • image

      md.mumun

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      আমার আপনার না চাওয়ায় কি হবে?সংখ্যাগরিষ্ট মানুষ যা চাইবে তাই হবে। এই জন্য দরকার সুষ্ট একটা নির্বাচন।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      জামাত-শিবির তো বাতিল বা ব্যান্ড হয়ে গিয়েছে, তাদের তো আইনতঃ আর কোন অস্তিত্ব থাকার কথা নয়; তারপরও তাদের আছড়, ভুতের আছড়ের মত আপনাদের প্রতিনিয়ত তাড়িয়ে বেড়ায় কেন? আর কোন তরুণ আর সাংবাদিক সমাজের কথা বলছেন- কোটা আন্দোলন আর নিরাপদ সড়ক আন্দোলনে যাদের উপর হেলমেট পড়ে হামলে পড়েছিলেন, আর যাদের রিমান্ডে নিয়ে নানা কায়দায় নির্যাতন করেছিলেন- তাদের?

  • image

    Khurram Sajid

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    তিনি যে ভদ্রলোক ও সজ্জন তার প্রমান দিলেন। তবে তার বিরুদ্ধে যারা কুৎসা রটাচ্ছেন এবং কামালবিরোধী প্রচারযুদ্ধে নেমেছেন তারা এতে থামবে না। কারণ তারা ভদ্রলোজ ও সজ্জন নন।

  • image

    Mir Md Mofazzal Hossain

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    আলো চাই ! মুক্তি চাই ! প্রানের স্পন্দন চাই ! বাঁচার মত বাঁচতে চাই ! একটি পতাকা, একটি শ্লোগান, একটি জাতীয়তাবাদ ও একটি সংবিধান চাই। আর চাই জামাত-শিবির-রাজাকার মুক্ত বাংলাদেশ ।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      তাই নৌকায় ভোট চাই (লিখতে ভুলে গেছে)

  • image

    Mohammad

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    শাক দিয়ে মাছ ঢাকার চেষ্টা ! আসল রূপ বেড়িয়ে আসায় ধরা খেয়ে গেছে।

  • image

    MD.ABDUR RAHMAN

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    দু:খ প্রকাশ করা হচ্ছে ড. কামাল হোসেনের স্বভাবজাত ভদ্রতা ও ব্যক্তিত্বের বহি:প্রকাশ। তবে দেশের মানুষ তার দু:খ প্রকাশের জন্য নয়, অপেক্ষা করছিলো তাকে বিরক্ত করা সেই সাংবাদিকরা ক্ষমা চায় কি না সেজন্য। কিন্তু তারা তা করেনি, উল্টো কামাল হোসেন দু:খ প্রকাশ করে নিজেকে আরেকবার মানুষের কাছে চেনালেন। আপনার এই মানসিকতার জন্যই আপনাকে মানুষ সম্মান করে, শ্রদ্ধা করে। আপনার ওপরই মানুষের আস্থা।

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    রাজাকার জোটের প্রধান পৃষ্টপোষক হিসেবে নয়, খুনি, চোর আর রাজাকার স্বাধীনতা বিরোধী দোসরদের সাথে হাত মিলায়ে ক্ষমতায় যাবার স্বপ্ন বাদ দিয়ে ক্ষমা চান, জাতি ক্ষমা করতে পারে।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      কোন দলে বা জোটে ঐ স্বাধীনতা বিরোধীরা নেই- বলতে পারেন? অহেতুক একটা দলকে দোষ দিয়ে লাভ নেই।

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    এক শ্রেণীর সাংবাদিক-সুশীল আছেন যারা যখন তখন যেখানে সেখানে জামাত জামাত আর রাজাকার রাজাকার রব তুলতে খুব আরাম বোধ করেন। শুধু রব তুলেই ক্ষান্ত হন না, এসব নিয়ে ব্যক্তিবিশেষকে খোঁচা মারতেও ছাড়েন না। এসব করে তারা নিজেদেরকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সোল এজেন্ট প্রমাণ করতে চান। তাদের ক্যামেরা আর কলমের যাদুকরি কারবারে মুক্তিযুদ্ধের রণাঙ্গনের যোদ্ধার গায়েও লেপটে যায় রাজাকারের কালিমা। আবার তাদের দলে যোগ দিয়ে তাদের সাথে কোরাস গাইলে রাজাকারও হয়ে যায় মুক্তিযোদ্ধা। মুক্তিযুদ্ধকে পুঁজি করে একচেটিয়া ব্যবসাটা তারাই করতে চায় আর কাউকে সুযোগ দিতে চায় না।

  • image

    KAMRUL ALAM

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    ড. কামাল বলেন, আশা করি জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানেরা তাঁদের জীবনের বিনিময়ে যে ধর্মনিরপেক্ষ বাংলাদেশ নির্মাণের স্বপ্ন দেখেছিলেন, তা আমরা সবাই মিলে গড়তে সক্ষম হব। - জামায়াত কে সাথে নিয়ে স্বপ্ন পূরণ করবেন ? খুব ভালো

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    ধন্যবাদ ডঃ কামাল হোসেন কে। দুঃখ প্রকাশ করে তিনি মহত্বের পরিচয় দিয়েছেন। তার মত বড় মাপের মানুষ কাল ওভাবে রিএক্ট করা দেখে আশ্চর্য লেগেছিল। তবে কথা হলো সাংবাদিকরা এমন বিরক্ত কেন করে সব সময়। সাংবাদিকদেরকে শালীনতা কে শেখাবে? আমার মনে হয় সাংবাদিকরা তাদের উপরের নির্দেশে এগুলো করে। সবার কাছ থেকেই উপযুক্ত আচরণ প্রত্যাশিত। ল্ল

    • image

      msIqbal

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      স্বজন হত্যাকারীকে দিয়ে স্বজনের লাশ বয়ে নিয়ে যাওয়া যেমন অসম্ভব আর তামাশার, তেমনি বুধদ্ধিজীবী হত্যাকারী/স্বাধীনতা বিরোধীদের সাথে ঐক্য করে অভিন্ন মার্কায় নির্বাচনে অংশ নিয়ে বুধদ্ধিজীবী বেদিতে শ্রদ্ধা জানানোটাও শহীদদের সাথে তামাশার ! জামায়াত সম্পর্কে ড. কামাল হোসেনকে প্রশ্ন করার এ যাবৎকালের সব চাইতে মোক্ষম স্থান ও সময়ই তো ছিল কাল? ড. কামাল হোসেনের মতো জ্ঞানী/গুণী মানুষকে এমন প্রশ্নের জন্য তৈরী হয়েই যাওয়া উচিত ছিল! মাত্র তো শুরু

  • image

    Nayanabhiram Das

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    প্রিয় ডঃ কামাল হোসেন আমার মনে হয় আপনি বাঘ বন্দি হয়ে গেছেন।

  • image

    Rafiq Khan

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    শিষ্টাচার কাকে বলে তা দেশবাসী জানুক ! ক্ষনজন্মা মানুষ !!

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    সঠিক বলেছেন।

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    ধন্যবাদ ডঃ কামাল হোসেন কে। দুঃখ প্রকাশ করে তিনি মহত্বের পরিচয় দিয়েছেন। তার মত বড় মাপের মানুষ কাল ওভাবে রিএক্ট করা দেখে আশ্চর্য লেগেছিল। তবে কথা হলো সাংবাদিকরা এমন বিরক্ত কেন করে সব সময়। সাংবাদিকদেরকে শালীনতা কে শেখাবে? আমার মনে হয় সাংবাদিকরা তাদের উপরের নির্দেশে এগুলো করে। সবার কাছ থেকেই উপযুক্ত আচরণ প্রত্যাশিত।

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    Sir, Salam salam for your great fighting against our current democracy. It not good to suggest you, but we have to remember we are fighting against a regime who have made the roots country each & every parts by their power. So we have to be very cool they will try to make our leader's crazy to say some thing wrong & they will make a issue.

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    অতি উৎসাহী সাংবাদিক কারা এরা??

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    উনি বাংলাদেশের সংবিধান রচয়িতার কমিটির দায়িত্বে ছিলেন । কিন্তু উনি আজ খালেদা জিয়া , তারেক জিয়ার মতো অপরাধীদের পুনর্বাসনের জন্য ধানের শীষে ভোট চাচ্ছেন ! এজন্য ওনার ক্ষমা চাওয়া উচিত ।

    • image

      md.mumun

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      সৈরাচার এরশাদের ব্যাপারে কোনো মন্তব্য নাই যে?

  • image

    Abdur Rahman

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    খালি চোখে বোঝায় যায় উদ্দেশ্য প্রনোদিতভাবে কিছু সাংবাদিক তাকে বেফাস কথা বলতে উত্তেজিত করেছিল। কিন্তু তিনি কৌশলের উত্তর ১, ২ না দিয়ে ৩ নম্বরটা দিয়েছেন। তার আরো হোমওয়ার্ক করা দরকার।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      ডিজিটাল আইনে কেস হয়ে গেছে।

    • image

      মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      সাংবাদিকের কাজ হল নিউজ তৈরি করা। তাই সাংবাদিকরা খোচাবেন সেটাই স্বাভাবিক। অভিনেতাদের সংবাদ সম্মেলনে যেমন সাংবাদিকরা তাদের পারবারিক জীবন ও ফ্লপ ছবি নিয়ে প্রশ্ন অধিক থাকে। কারন সাংবাদিকের কাজই হল ব্যাক্তির দুর্বল যায়গায় হাত দেওয়া। আর এ নির্বাচনে কামাল হোসেনের এটাই দুর্বলতা।

    • image

      md.mumun

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান ভাইয়া, সাংবাদিকের কি কাজ, সেটাতো গণভবনে গেলে দেখতে পায়।

    • image

      মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      গণভবনে যিনি থাকেন তিনি প্রধানমন্ত্রী। তাকে যেন তেন প্রশ্ন করা যায়না। এটা প্রোটোকল। সেখানে হাসিনা বা খালেদা সেটা মুখ্য না। আর গনভবনে সাংবাদিক যায়না যায় সম্পাদক। স্মরন করুণ সম্পাদকদের সাথে কামালদের যে বৈঠক হল সেখানেও কিন্তু গঠনমূলক প্রশ্ন হয়েছে। কারন সাংবাদিক আর সম্পাদকদের প্রোটোকল এক নয়।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান, সাংবাদিকদের কাজ নিউজ পরিবেশন করা নিউজ তৈরী করা কখনো নয়।

    • image

      মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      পরিবেশনা উপস্থাপকের কাজ। সাংবাদিক সংবাদ তৈরি করবেন। নোট করবেন, ফুটেজ নিবেন। আমাদের দেশেতো তাও স্টিং অপারেশন হয়না। উন্নত রাষ্ট্রে এটা নিয়মিত চর্চা। এরপর চ্যানেল কতৃপক্ষ অথবা সম্পাদক নির্দেশনা দিবেন এটা প্রচার করা যাবে কিনা। উপস্থাপন করেছে চ্যানেল আর সংবাদপত্র। এখানে ইউ টিউব শেয়ার করা যায়না। থাকলে শেয়ার করে বোঝাতে পারতাম কোন শ্রেণির সাংবাদিকের কাজ কোন ধরনের।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান, উপস্থাপন করেন উপস্থাপক, সংবাদ পাঠক বা সংবাদ কর্মী করেন সংবাদ পাঠক। ঘটনা ছাড়া সংবাদ হয়না আর ঘটনা ঘটানো সাংবাদিকের কাজ না, সাংবাদিক সংবাদ সংগ্রহ করেন এবং তা পরিবেশকের কাছে পেরণ করেন। সংবাদ আর গুজব এক নয় সম্পূর্ণ ভিন্ন, গুজব তৈরী, সৃষ্টি বা বানানো যায়, সংবাদ কখনো যায় না।

    • image

      মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান

      ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক। আপনি এক ব্যাক্তি ৩বার এসেছেন নাকি একাধিক ব্যাক্তি বুজতে পারছিনা। যাই হোক এটা মুল সমস্যা না। বিখ্যাত ব্যাক্তির মন্তব্য অ বক্তব্য অবশ্যই সংবাদ সেটা আপনি / আপনারা বুঝতে পারছেনা নাকি ইচ্ছা করেই এড়িয়ে যেতে চাচ্ছেন বোধগম্য হচ্ছেনা। আপনি খেলা দেখেন? যখন মাদ্রিদ ভার্সেস পুচকে দলও খেলা হয় তখন ঐ পুঁচকে দলও খেলার পাতায় বা স্পোর্টস জার্নালে হেডলাইন হয়। কামাল হোসেন কি সে একজন কিংবদন্তি সেটা আগে বুজতে হবে। তিনি বর্তমানে তারকাও। এতএব তার বক্তব্য অবশ্যই খবর। এখন আপনার কথামত সাংবাদিকরা যদি কামাল হোসেন কে এরিয়ে চলেন তাহলে কিন্তু সব থেকে ব্যাথিত হবেন কামাল হোসেন আর রব সাহেব। কারন প্রচারেই প্রসার। প্রচারে নামতে হলে নেতিবাচক প্রচার চলে আসতে পারে সেতা সবারই জানা। যত বেশি প্রচারে থাকবেন ততবেশি নেতিবাচক দিক বের হয়ে আসবে। খেয়াল করুন ওবায়দুল কাদের। তিনি এক সময় বেশ জনপ্রিয় ছিলেন প্রতিদিন খবরে আসতে আসতে কি অবস্থা হয়েছে।

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    Thank you. Really you are a great personality.

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    ড: কামালের জাতির কাছে ক্ষমা চেয়ে বিএনপি জামাতের ঐক্য থেকে বের হয়ে আসা উচিত ।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      ২০০১ সালের পর থেকে জামাত কে যুদ্ধ অপরাধি বানানো হোয়েছে, সবাই জানে দাদা

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      তাহলেই বুঝি আপনাদের আবারো বিনাভোটে আসার রাস্তা পরিষ্কার হয়?

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    "তোমার নাম কী? জেনে রাখব তোমাকে। চিনে রাখব।" অর্থাৎ উনি কনফিডেন্ট যে নির্বাচনে জিতবেন এবং তারপর সেই সাংবাদিকের দফারফা করবেন।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      ড. কামাল হোসেনের মতো একজন মানুষ ওই সাংবাদিকের নাম জানতে চেয়েছে, এটা ওই সাংবাদিকের সৌভাগ্য।

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    ঐ সাংবাদিক কি কখনো প্রধানমন্ত্রীকে প্রশ্ন করতে পারবে যে ম খা আলমগীর, মতিয়া, ইনু এরা কেন আওয়ামীলীগে?

    • image

      মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      শেখ হাসিনা বিরোধী দলে আসলে ঠিকই পারবেন। কারন যারা ক্ষমতায় থাকেনা তারা জনগনের কাতারে থাকেন। বিরোধি দল যদি জনগনকেই (সাংবাদিক) ভয় পায় তবে গনতন্ত্র কোথায় যায়।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      কিয়ের লগে কি কইলেন ভাই। উনি এত্ত জাঁদরেল উকিল হয়ে এই টুকু সাংবাদিকের উত্তরে খাবি খাইবেন? সংবিধান সামলাইতে পারেন তো সাংবাদিক সামলাইতে ভিমরি খান।

  • image

    biplob

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    ফখরুল সাহেবও সাংবাদিকদের সাথে এরকম আচরণ করেনি, আর উনি এতো অতি উৎসাহী হয়ে জামায়াতের পক্ষ নিয়ে কিভাবে কথা বলেন ??

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      পক্ষ কোথায় নিলেন?? উনি তো বিরক্ত হয়েছেন। এক জিনিস ৩/৪ মাস ধরে ঘ্যান ঘ্যান করা হচ্ছে৷

  • image

    Titu

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    ডঃ কামাল হোসেন এর পুরো বক্তব্যটা ভাইরাল হয়নি শুধুমাত্র "খামোশ" বলেছেন সেটা ভাইরাল হলো!!!!! উনি শহীদদের কথা বলেছেন সেটা কেউ বলেনি!

    • image

      মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      শহীদের কথা বলেছেন বলেই জামাতের কথা এসেছে। দুর্গার মুর্তি গড়তে যেমন অসুরের মুর্তিও গড়তে হয়। তেমনি মুক্তি যুদ্ব ও শহীদের কথা বললে পিছন পিছন বংবন্ধু ইতিবাচক হিসাবে আর জামাত, রাজাকার ও যুদ্বাপরাধী এ শব্দ গুলোও নেতিবাচকভাবেই চলে আসবে। এসব কামাল স্যারের না জানার কথা নয়। তিনি বাধা পরেছেন এখন হাস ফাস করছেন।

    • image

      Rajib

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      শহীদদের হত্যাকারীদের সাথে জোট করে একই প্রতীকে নির্বাচন করে সেই শহীদদের শ্রদ্ধা জানানো ভন্ডামী!

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      এক গ্যালন দুধের মধ্যে এক ফোঁটা চনা বাকি দুধের পুষ্টি মূল্যহীন করে দেয়। বিএনপি-জামায়াতের ঠেলাগাড়িতে চড়ে উনি বুদ্ধিজীবির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে গেছেন, এই সত্যি কথা জিজ্ঞেস করায় সেই নষ্ট জিনিসের গন্ধ বেরিয়ে এসেছে।

  • image

    A.K.M.OBAIDULLAH

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    মানুষ রেগে গেলেই তার স্বরূপ প্রকাশিত হয় ।

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    বাংলাদেশের ম্যাক্সিমাম সাংবাদিকেরাই আওয়ামী ঘেষা। জামায়াত যে আওয়ামী লীগের সাথেও এক সময়ে আন্দোলন করেছিল সে বিষয়টা তারা ইচ্ছে করেই ভুলে থাকে । মনে করে যে যেহেতু তারা বিষয়টা নিয়ে কথা বলে না বা লেখালেখি করে না সাধারণ মানুষও মনে হয় ব্যাপারটা জানে না (কারণ তারা নিজেরা মনে করে যে জানাবার সোর্স তো তারাই)। উনাদের উচিত আওয়ামী ঘরানার লোকদেরকে জিজ্ঞেস করা (আজ যারা ড. কামলাকে 'জামাত' জামাত' বলে টিজ করছে) - ঐ সময়ে জামায়াত কি যুদ্ধাপরাধী , রাজাকার চিন্হিত হয় নি? ১৯৭১ সাল কি ১৯৯৪-৯৬ এর পরে এসেছে?

    • image

      মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      সাংবাদিক, শিক্ষক, ক্রীড়াবিদ, চিত্র, নাট্য ও সঙ্গীত শিল্পী, ব্যবসায়ী, কৃষক, গার্মেন্টস কর্মি সবাই আওয়ামীলীগ। তারপরেও নাকি ৯৫% লোক বি এন পি কে পছন্দ করে।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      বাংলাদেশের ম্যাক্সিমাম সাংবাদিক এখনো অন্য পেশার চাইতে সৎ। তা যদি না মানেন তাহলে পত্রিকা পড়েন কেন? ফেইসবুকের বাঁশের কেল্লা দিয়েই তৃপ্ত থাকেন। জামায়াত নিয়ে কথা বললে যদি সাংবাদিকদের সততা নিয়ে প্রশ্ন জাগে তাহলে আপনার চরিত্র, পেশা, ধ্যান-ধারণা, বুদ্ধিমত্তা, জাতীয়তা এমন কি পৈত্রিক পরিচয় নিয়েও প্রশ্ন জাগা সম্ভব।

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    ডঃ কামাল হোসেনের ছোট খাট ভুল খুজে বেড়াচ্ছিল সরকার কিন্তু পাচ্ছিলনা। ব্যারিষ্টার মইনুল হোসেনের ভুল যেমন তাকে ফাঁদে ফেলেছে এবং জেলে পর্যন্ত থাকতে হচ্ছে। সুতরাং সরকারের কোন পাতা ফাঁদে পা না দেয়ার নিবেদন করছি। সরকার ডঃ কামালের গাড়ীবহরে হামলার বিরুদ্ধে সরকার নিন্দা করেনি, ব্যবস্থা নেয়নি কিন্তু একটু ভুল পেয়েছেতো সাথে সাথে প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করেছে। ভুলে গেলে চলবে না ঐক্যফন্টের এই বর্ষীয়ান নেতা দেশের মেজরিটি মানুষের প্রতিনিধিত্ব করছেন। সরকারের মনোভাব শতভাগ ষ্পষ্ট এবং দৃশ্যমান যে তারা বিরোধীদের ভোটের মাঠে দেখতে চায়না। খালি মাঠে গোল দেয়া তাদের জাতীয় অভ্যাসে পরিণত হয়ে উঠেছে। এতে তারা রাখ ডাক করছেনা শুধু প্রকাশ্যে বলা বাকি আছে। বার বার ও নিষ্ঠুর বৌ পেটানো এক স্বামীকে স্ত্রী বলছেঃ তুমি আমাকে এত নিষ্ঠুর ভাবে অত্যাচার করছো কেন? তুমি কি চাও আমি বাপের বাড়ী চলে যাই? অত্যাচারী স্বামী বলছেঃ মাইরের ভাব দেখে বুঝছোনা আমি কি চাই? সুতরাং নিষ্ঠুর গল্পটাকি এখন বাস্তবতায় নেই? শুধু নেই বললে ভুল হবে বরং তা ষ্পষ্ট।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      এইটুকু ভুল? একজন সাংবাদিককে পয়সা দিয়ে কেনা বলে অপমান করা এবং তাদের কেনার আমন্ত্রণ কতখানি গর্হিত কাজ বুঝতে পারেন? ভাই উনি দেশের সবচেয়ে বড় আইনজীবি, জানেন তো... আপনার আমার কথায় বহু কিছু ভুল মানা যায়, কিন্তু আইনজীবিরা প্রতিটি শব্দই মেপে বলেন। এটাই উনাদের প্রফেশন, এটাই উনাদের উচ্চতা।

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    টেকনাফ মডেল থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ধানের শীষের কর্মীদের নির্বাচনের আগে এক মাস এলাকা ছেড়ে অন্যত্র চলে যাওয়ার হুমকি দিচ্ছে। না হলে নেতাকর্মীদের বেছে বেছে ক্রসফায়ার দিয়ে মেরে ফেলার কথা বলে বেড়াচ্ছে

    • image

      মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      এটা কি এই সংবাদের সাথে প্রাসঙ্গিক।

    • image

      shibly

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      মানুষের জীবন নিয়ে উদ্বেগ আর ভয়ের কথা বলতে প্রাসঙ্গিকতা খুঁজতে হবে?

    • image

      মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      সংবাদের অভাব নাই। এর সাথে প্রাসঙ্গিক কন এক নিউজ ইভেন্টে মন্তব্য করলে ভালো হত।

  • image

    msIqbal

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    মানুষকে কত বোকা আর নাদান ভাবেন আপনারা! জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের হত্যার সাথে যারা সরাসরি জড়িত তাদেরকেই সাথে নিয়ে আপনারা জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়বেন? আর কত তামাশা করবেন আপনারা? জামায়াত আর আপনার গণফোরাম বিএনপির ধানের শীষ নিয়ে বির্বাচন করছে । নিবন্ধনহীন জামাতের অভিবাভক আজকের বিএনপি। ঐক্যফ্রন্টের নেতৃত্ব দেয়ায় এখন যদি আপনাকে কেউ জামায়াতিদের নেতা বলে তাহলে কি তাকেও আপনি "খামোশ" চুপ করিয়ে দিবেন?

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      এখন সরকার জামায়েত এর কুকর্ম কে হার মানিয়েছে।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      what is your opinion about the alliance of Ershad & AL?

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      জামাতের চেয়েও আদর্শহীন আওয়ামী লীগ। জামাতিদের চেয়েও ভয়ঙ্কর আওয়ামী লীগার।কর্ম, আরচর আর মতামতই তার বাস্তব উদাহরণ।

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    ড. কামাল হোসেন ও ব্যারিস্টার ময়ুনূল হোসেনের ন্যায় সাংবাদিকদের নোংরা রাজনীতির শিকার। সাংবাদিক ইকবাল সোবাহান চৌধূরী সাগর রুনি হত্যার বিচারের জন্য সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উপর ক্ষেপে ছিলেন, পরে তাকে প্রধান মন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা করার পর আর উনার কোন দিন কথা বলতে দেখিনি।

  • image

    Afzal Hossain

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    We have no choice other than AL . If we want to see a develop country. We need to vote for AL. No other party that we can trust.

    • image

      Monjurul Alam

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      বড় ভাই. বিকল্প কি? বলেন। নাই

  • image

    saiful bari

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    দুঃখ প্রকাশ করে ডঃ কামাল হোসেন অন্তত নিজের সন্মানের প্রতি কিছুটা সুবিচার করেছেন। ঐক্যফ্রন্টের “পুনরুদ্ধার” কৃত গণতন্ত্রের নমুনা নিম্নের বিখ্যাত উক্তি সমূহের মধ্যে নিহিত রয়েছে বলে আমার মনে হয়। “চুপ বেয়াদব” - বেগম খালেদা জিয়া। “হাত ভেঙে দিব।”- ডঃ মুহাম্মদ ইউনূস। “ আপনাকে চরিত্রহীন মনে করতে চাই।” - ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন। “তোমাকে চিনে নিব, খামোশ!”- ডঃ কামাল হোসেন। “পালানোর সুযোগ পাবেন না”- আ, স, ম রব। “ Mind your language”- মান্না।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      কিন্তু সব কিছুর শেষ কথা 'সেন্টারেই আসতে দিবো না'

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      আর কত ব্যবিচারের পর বিবেক জাগ্রত হবে? আওয়ামী লীগ কি আসলে কোনো ভদ্রলোকের রাজনৈতিক দল হতে পারে?

    • image

      shibly

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      আঃলীগঃ ডা্ইরেক্ট এ্যাকশন! হাতুরি,রড,রাম দা, লগি-বৈঠা, চোখ তুলে নেব-- আমি অবশ্য খুব কমই খোঁজখবর রাখি - তাতেই এসব শুনি এবং বাস্তব প্রয়োগ দেখেছি....বাংলাদেশের রাজনীতিতে সাধু কে সাধ্বী কে?

    • image

      Monjurul Alam

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      We are looking for শত্রু আল্লাহর মাল আল্লাহ নিয়ে গেছেন যত লোক মারা যাওয়ার কথা ছিল তত লোক মারা যায় নাই

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      "সংবিধান থেকে এক চুল ও নড়বো না।"- শেখ হাসিনা প্রতিপক্ষকে রাষ্ট্রীয় যন্ত্র দিয়ে দমনের মাধ্যমে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর জন্য বাধ্য করাটাও কি সংবিধানের অংশ?

  • image

    msIqbal

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    "খামোশ" বলার মধ্য দিয়ে আপনার ভেতরের মানুষটার যে স্বরূপ আপনি জাতির সামনে উম্মোচিত করেছেন, দুঃখ প্রকাশের মাধ্যমে তাতে একটু প্রলেপ হয়তোবা লাগাতে পারবেন। কিন্তু আপনার সেই ভেতরের সত্তাটাকে কি আপনি "খামোশ" করিয়ে রাখতে পারবেন?

  • image

    Arif

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    thank you sir

  • image

    S J Ratan

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    বিস্তারিত জানানোর জন্য প্রথমআলোবে ধন্যবাদ!

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    আসলেই ধিক্কারজনক ঘটনা।

  • image

    MASUD_Hanwha

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    আপনার মত সম্মানিত ব্যক্তির উপর এভাবে ন্যাক্কারজনক ভাবে সন্ত্রাসী হামলা হলো! সেটার জন্য দায়িত্বরত কর্তা ব্যাক্তির ক্ষমা চায়নি বরং আপনি খামোস বলার অপরাধে আপনাকে ক্ষমা চাইতে হয়েছে! মনে রাখবেন ক্ষমা চাইলে মানুষ মহান হয়, আর ওই সব দালালেরা আস্থাকুড়ে নিক্ষেপ হবে!!!

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    শ্রদ্ধেয় ডঃ কামাল হোসেনের ক্ষোভের সাথে সারাদেশবাসী একমত কিছু নতজানু দলকানারা ছাড়া.. সেই সাথে তার গাড়িবহরে হামলার তিব্র নিন্দা জানাই যেটা আমাদের নব্য চেতনাবাজরা সম্পুর্ণ হাইড করে ফেলেছে।

  • image

    msIqbal

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    "চিনে রাখবো" হুমকির মাধ্যমে আপনার ভেতরে লুকিয়ে থাকা প্রতিহিংসা পরায়ণতার যে মুখোশ আপনি উম্মোচিত করলেন, দুঃখ প্রকাশ করলেই আপনার সেই প্রতিহিংসা পরায়ণতা "দুঃখের" ভারে পালিয়ে যাবে?

    • image

      SHAMEEM

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      না, তা'কি কখনো হয়? সুজোগ পেলেই সাপ ছোবল দেবে।

  • image

    A.K.M.OBAIDULLAH

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    ডঃ কামাল যে একদিন রাজাকারদের সাথে হাত মেলাবেন, এটা আগে থেকেই বোঝা গিয়েছিল, গণফোরাম হোল অন্তর্বর্তী পদক্ষেপ ।

  • image

    sams sohel

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    thank you sir

  • image

    Sadi Nazrul Islam

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    এখন আসল সাংবাদিক নাই সব দল বাজ

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      এর জন্যই তো সরকারের প্রতিটা ভালো কাজ নিয়ে গুজব ছড়ায়।।।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮

      সব "দল" বাজ

  • image

    Hasan Ahmed

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    এরাই হলো সুর্য সন্তান। আপনাকে আপনাকে ধন্যবাদ।

    • image

      শিপন England

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      কালকে কি সুরুজ ঘুমিয়ে ছিল?

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    যাদের কমেন্টস গুলো তে লাইক পড়েনাই তাদের জন্য বলতেছি যে, এইরকম কমেন্টস করেন কেন যেটাতে নিজেই লাইক দেন না,,,,

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      লাইকপদ্ধতির উপদেষ্টা অনিচ্ছুক ভাইকে বলি। আপনার ৩ টি লাইক দেখলাম, তার মধ্যে আপনার একটি। রাইট? আপনার পরিবার পরিষদ বন্ধুবান্ধবসহ আর ২ জন মাত্র লোক?

  • image

    Mir Md Mofazzal Hossain

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    যুদ্ধাপরাধীর বিচারের গত ১০ বছরে উনি কি কখনো যুদ্ধাপরাধীর ব্যাপারে (পক্ষে বা বিপক্ষে) কিছু কি বলেছেন?

    • image

      md.mumun

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      বিচার করছে,সাধুবাদ। কেউ কিছু বললো কিনা কিইবা আসে যায়।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      বিচারটি কি আদৌ বিচার হয়েছে নাকি আওয়ামী লীগ তার ক্ষমতায় টিকে থাকার পথটাই শুধু মসৃণ করার পাঁতারা করেছে?

    • image

      mahamud

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      Why not banned JAMAT in 10 years?

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    অনেকে জানে না ২০০১ এর পর থেকে জামাত যুদ্ধাপরাধী হোয়েগেছে।

    • image

      Rajib

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      কারন মানুষ ২০০১ এর পরই সত্য ইতিহাস জানতে পেরেছে! বাংলাদেশ ই একমাত্র দেশ যেখানে তাদের জন্মের ইতিহাস দীর্ঘ ২১ বছর মিথ্যাচার দিয়ে ঢেকে রাখা হয়েছিল!

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    কিছু সাংবাদিক এটা কেন মনে করেন যে, তারা যা করে সেটাই ঠিক ?

    • image

      msIqbal

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      একজন সাংবাদিক যে কোনো জায়গায়, যে কোনো সময়, যে কোনো প্রশ্ন করার অধিকার রাখেন। আপনি নিজেও অধিকার রাখেন যে কোনো প্রশ্নের উত্তর না দেবার। কিন্তু জবাবদিহি প্রতিষ্ঠার বুলি আওড়াবেন আর প্রশ্ন করলে চিনে রেখে "দেখে নেয়ার হুমকি দেবেন" এমন স্ববিরোধিতা কাম্য হতে পারেনা।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      সাংবাদিক লীগ বলেন!

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    উদ্দেশ্য প্রনদিতভাবে কিছু সাংবাদিক তাকে বেফাস কথা বলতে উত্তেজিত করেছিল। দুঃখ প্রকাশ করে ডঃ কামাল মহত্বের পরিচয় দিয়েছেন।আপনার এই মানসিকতার জন্যই আপনাকে মানুষ সম্মান করে, শ্রদ্ধা করে। আলো চাই ! মুক্তি চাই ! বাঁচার মত বাঁচতে চাই !

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      সঙ্গে আরো দুঃখ প্রকাশ করুন "জামায়েত" এর সাথে সখ্য করার জন্য। মুখে বলেন ধর্ম নিরপেক্ষতা আর দহরম মহরম জামায়েতের সাথে। এ কোন নীতি আপনার ? বলেন জামায়েত থাকলে আমি নাই এখন বলছেন কই জামায়েত তো দেখিনা। মনের ভেতর লুকানো কথা মানুষের রাগ উঠলে মুখ ফস্কে বের হয়ে যায়।

    • image

      Monjurul Alam

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      আপনি যা বললেন এটা উনি প্রফেশনালি করেন সাংবাদিকগণ নন

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      স্বজন হত্যাকারীকে দিয়ে স্বজনের লাশ বয়ে নিয়ে যাওয়া যেমন অসম্ভব আর তামাশার, তেমনি বুধদ্ধিজীবী হত্যাকারী/স্বাধীনতা বিরোধীদের সাথে ঐক্য করে অভিন্ন মার্কায় নির্বাচনে অংশ নিয়ে বুধদ্ধিজীবী বেদিতে শ্রদ্ধা জানানোটাও শহীদদের সাথে তামাশার ! জামায়াত সম্পর্কে ড. কামাল হোসেনকে প্রশ্ন করার এ যাবৎকালের সব চাইতে মোক্ষম স্থান ও সময়ই তো ছিল কাল? ড. কামাল হোসেনের মতো জ্ঞানী/গুণী মানুষকে এমন প্রশ্নের জন্য তৈরী হয়েই যাওয়া উচিত ছিল! মাত্র তো শুরু, এই প্রশ্ন তো ড. কামাল হোসেনকে অমৃততুই কেবল নয়, মরণের পরেও কুরে কুরে খাবে!!! (msIqbal -এর মন্তব্যটা আপনার মন্তব্যর উত্তর হতে পারে বলে কপি কর‌লাম)

  • image

    Tuhin

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    বালুর ট্রাকে বন্দি গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে, ভোট বিহীন ইলেকশন মার্কা গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে, বিরোধী দল বিহীন সংসদীয় গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে, সুস্থ মানুষকে অসুস্থ বানিয়ে, গৃহপালিত বিরোধী দল বিহীন সুস্থ গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে লগী বৈঠা, হাঁতুড়ি, কিরিচের রাজনিতি বন্দ করে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে, গুম, খুনের রাজনিতি বন্দ করে সুস্থ গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে, রাস্ট্রিয় সম্পদ হরিলুট বন্দ করে সুস্থ গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে, মিথ্যাচার বন্দ করে সত্য সুন্দর সুস্থ গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে..... নৌকার বিরুদ্ধে রুখে দাড়ান।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      দশ ট্রাক অস্ত্র ভর্তি গনতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে ধানের শীষের পক্ষে দাড়াব? হাওয়া ভবন আর 10% এর দিন ফিরিয়ে আনতে, বিদ্যুৎ বিহীন খাম্বা ফিরিয়ে আনতে ধানের শীষের পক্ষে দাড়াব? ভোট বিহীন নির্বাচন বিএনপি করেনি? ১৫ ফেব্রুয়ারী ১৯৯৬? ভুলে গেলেন?

  • image

    সোহাগ আহমেদ

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    ড. কামাল হোসেন সে কথা গুলো বলেছেন সেগুলো বলা ওনার ঠিক হয়নাই, তবে ওনাকে ধন্যবাদ যে তিনি দুঃখ প্রকাশ করেছন। আমি কিছু কথা বলতে চাই সাংবাদিক ভাইদের ঐক্যফ্রন্ট তো আর জামাতের সাথে নাই আছে বিএনপির ২০ দলের সাথে। সাংবাদিক ভাইদের এটা জানা থাকা দরকার যে ৯৬ সালে জামাতের সাথে আওয়ামীলীগ এক মঞ্চে থেকে সরকার বিরোধী আন্দোলন করেছে এমনকি বর্তমানেও রাজাকারের হাতে নৌকা তুলে দিয়েছে এমনকি মন্ত্রিও মানিয়েছে তাদের মধ্যে উল্লেখ যোগ্য খন্দকার মোশারফ হোসেন, বিকল্প ধারার মেজর মান্নান ছাড়াও অনেকে।তাহলে আপানারা তাদের বিপক্ষে কি আলোচনা করেছেন বা কোনপ্রকার আওয়ামীরীগের কাছে প্রশ্ন করেছেন। যদি না করে থাকেন তাহলে একপক্ষকে কেন ছাড় দিচ্ছেন আর আরেক পক্ষকে রাজাকার বিষয়ে প্রশ্ন করছে। রাজাকার তো রাজাকার, রাজাকার বিষয়ে আপনাদের নিরপেক্ষ ভুমিকা পালন করা দরকার।

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    ড. কামালের ক্ষোভের যৌক্তিকতার উপর একটা ভোট আয়োজন করার অনুরোধ রইল।

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    হায় রে সাংবাদিক! ড. কামালের বিরুদ্ধে যেসব সাংবাদিক মানহানির অভিযোগে মানববন্ধন ডেকেছেন, মামলার আবেদন করেছেন, জিডি করেছেন বা জাত-কুল-মান সব গেলে বলছেন-- আমি সেসব সাংবাদিকদের বলতে চাই, গত ৫ আগস্ট ছাত্র আন্দোলনের দিন যেসব সাংবাদিককে প্রকাশ্যে ছাত্রলীগ-যুবলীগ মেরেছিল সেদিন আপনাদের সম্মান কোথায় ছিল? সাগর-রুনি হত্যার বিচারের কথা নাই বা বললাম-- একটি অনির্বাচিত সরকার নিয়ম রক্ষার নির্বাচনের কথা বলে আচিরেই একটি গ্রহণযেগ্য নির্বাচন দেবার অঙ্গীকার করেও নির্বাচন না দিয়ে হরিলুটের মাধ্যমে ৫ বছর ক্ষমতায় থেকে তাদেরই অধীনে দলীয় বাহিনী আর মেরুদণ্ডহীন একটি পুতুল নির্বাচন কমিশিন দিয়ে আবার একটি প্রহসনের নির্বাচন করার পাঁয়তারা করছে! কোথায় আপনাদের সম্মান?

  • image

    Md. Habibur Rahman Majumder

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    আপনি অতি বিনয়ী,ভদ্রলোক বলেই দুঃখ প্রকাশ করেছেন।না করলেও চলতো...

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮

      মোটেও সত্য নয়।

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    বাহ! বুদ্ধিজীবী দিবসে উনি জামায়াতে ব্যাপারে মন্তব্য করতে চান না। অথচ এই বুদ্ধিজীবিদের হত্যার পেছনে মূল ভূমিকাই ছিল জামায়াতের। একেই বলে সুশীল অনুভূতি।

    • image

      md.mumun

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      জামাতের ব্যাপারে সবাই জানে, তারা কি, কি তাদের পরিচয়। ডঃ কামালের মুখ থেকে নতুন কি শুনতে চাইছেন আপনারা? বিএনপি জামাতকে কাছে নিয়ে ভুল করেছে, জণগন দেখে শুনে তাদের প্রত্যাখান করলে করবে। ভোট দিলে দিবে, এটা সময় বলে দিবে। এইজন্য তো দরকার সুষ্ঠ নির্বাচন। কি বলেন?

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      যেই মার্কায় ঐক্যফ্রন্টের প্রধাননেতা ডঃ কামাল হোসেনের দল নমিনেশন পায় মাত্র ৭টা আসনে, সেই একই মার্কায় জামায়াতের নেতারা পায় ২৫ টার বেশী আসন। এ ব্যাপারে জানতে চাওয়া যেতে পারে।

  • image

    mahamud

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    I am astonished! No one talked about he was attacked by AL. shame on AL supporter.

  • image

    mahamud

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    AL has no intention to banned JAMAT. They like use jamat as their weapon to attack opposition.

  • image

    MD.ABDUR RAHMAN

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    বিশৃঙ্খলা, অন্যায়, জুলুম, নির্যাতন, নীপিড়ণ, ক্ষমতার দম্ভের বিরুদ্ধে মওলানা ভাসানীর সাহসী ও কার্যকর উচ্চারণ ছিল ‘খামোশ’। দীর্ঘদিন পর বাংলার মাটিতে এই ‘খামোশ’ শব্দটি উচ্চারণ করলেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেন। এই 'খামোশ' সরকারের নীপিড়ণ, নির্যাতন এবং সরকারি দালাল ও চাটুকারের বিরুদ্ধে। এই 'খামোশ' উচ্চারণটা আরো আগেই করা দরকার ছিল। ড. কামাল হোসেনের এক 'খামোশ' উচ্চারণ জনগণের মধ্যে আস্থা ফিরিয়ে এনেছে, সাহসের সঞ্চার করেছে, সন্ত্রাসীদের মধ্যে কাপন তৈরি করেছে। ড. কামাল হোসেন আপনাকে ধন্যবাদ। আপনার এই উচ্চারণ দালালদের মনোবল ভেঙে দিয়েছে ক্ষমতালিপ্সুদের মধ্যে আতংক তৈরি করেছে, আপনাকে আবারো, বার বার ‘খামোশ’ শব্দটি উচ্চারণ করতে হবে।

  • image

    Mohammed Khan

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    উফঃ হাফ ছেড়ে বাঁচা গেল । পুরাপুরি অধঃপতন হয় নাই ।

  • image

    jhalak khan

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    কেন দুখঃ প্রকাশ করলেন ? নিজেকে কি আর লুকাতে পারবেন?

  • image

    Mohammad Zakaria Habib

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    জামায়াত এবার ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করছে। এটা কি ডাঃ কামাল হোসেন সাহেব জানেন না? আপনি একদিকে শহীদের বেদীতে সন্মান জানাবেন আর এক দিকে স্বাধীনতা বিরোধী দলের পৃষ্ঠপোষকতা করবেন এটা কোন ধরণের স্ব-বিরোধীতা? এন্টি আওয়ামিলীগ সেন্টিমেন্ট আর বিএনপি-জামাতের সমর্থন দুটো আলাদা কথা। নিজের অবস্থান এখনো স্পষ্ট করেননি ডাঃ কামাল সাহেব।

  • image

    md.mumun

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    সাংবাদিকদের অপেশাদার আচরনে সাধারন মানুষ ক্ষুদ্ধ।তাই কাল আপনার আচরনকে, একশ্রেনীর সুবিধাবাদী মানুষ ছাড়া সবাই সমর্থন করেছে। তারপরও আপনার সৌজন্যবোধ থেকে আপনি দুঃখ প্রকাশ করেছেন। যা দেখে আমাদের অনেক কিছু শেখার আছে। অনেক ধন্যবাদ আপনাকে।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮

      আপনার বাকী কমেন্ট হতে আচরনের একটা ধারনা পাওয়া যাচ্ছে। দুই পয়সার বদলে চার পয়সা দিব আচরন বদলান।

  • image

    শিপন England

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    বুঝেন খমতায় গিয়ে কি করবেন, এখনি মাথা সামাল দিতে পারেন না, এক ঘাতকের দল নিয়ে এত বিপদ আর ১৬ কুটি জনতা কে সামাল দিবেন কি করে?

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮

      ক্ষমতায় গিয়ে কি করবেন সেটা পরে দেখা যাবে। আগে তো ক্ষমতায় যাওয়ার সুযোগ দিন। আপনারা তো সে সুযোগই দিচ্ছেন না। আর ১৬ কোটি জনতার কথা বলছেন? এই ১৬ কোটি জনতার সবাই কি আওয়ামীলীগের কর্মী ? যারা ঐক্যফ্রন্ট বা বিএনপির সমর্থক তারা কি এই ১৬ কোটি মানুষের অন্তর্ভুক্ত নয়?

  • image

    শিপন England

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    যারা আপিনার পক্ষ নিয়ে সাংবাদিক ভাইদের কে যা ইচ্ছে লিখেছে বলেছে, এদের কি খমা চাওয়া উচিত?

  • image

    Md.Ali Haider

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    ড.কামাল ও ঐক্যফ্রন্ট নেতৃবৃন্দ একাধিক বার জামায়াতের বিষয়ে তাদের অবস্থান ব্যাখা করেছেন । তারপরও একই প্রশ্ন বার বার করা উদ্দেশ্য মূলক,তাতে কোন সন্দেহ নাই। সাংবাদিক যদি প্রশ্ন করতেন ,পুলিশের এই ‍নির্যাতনের মধ্যে শেষ পর্যন্ত ‍নির্বাচনে থাকতে পারবেন কিনা-সেটা যথার্থ হতো। একজন বর্ষিয়ান নেতার এই উত্তেজনা প্রকাশ খুবই স্বাভাবিক! দুঃখ প্রকাশ তার উদারতারই বহিঃপ্রকাশ।

  • image

    Khurram Sajid

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    কামাল হোসেন "খামোস" বলেছেন এটা নিয়ে অতিরিক্ত হৈচৈ বাধিয়ে তার ওপর হামলার ঘটনাকে ধামাচাপা দেয়া হচ্ছে। এগুলোর মধ্যে সততা নেই। সাংবাদিকতার পেশাদারিত্ব নেই। রাজনৈতিক মতলবে সব করা হচ্ছে।

    • image

      Sohel

      ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮

      "খামোশ"-কে আড়াল করতে হামলাকে সামনে আনার অপপ্রয়াস |

  • image

    MD.ZIAUL HOQUE

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    রাজনীতি রাজাদের নীতি, আমাদের মত ছোট্ট একটা অধিক জনসংখ্যার দেশে ক্ষমতায় টিকে থাকা দেশ চলানো সহজ নয় । মুখে অনেক ভাল কথা বলা যায় তবে বাস্তবতা অনেক কঠিন ।১৯৭১ ইং হতে ২০১৮ ইং পর্যন্ত অনেক দেখলাম ।শুধু এটুকু বুঝি অরাজগতা ও বিশৃঙ্খলা হলে দেশের ক্ষতি সাধারণ জনগনের ক্ষতি

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    সাংবাদিকতা পেশাটাকে একশ্রেনীর মানুষ এমন কুলষিত করেছে যে তারা এর চেয়ে জঘন্য অপমান পাবার পর্যায় পৌছে গেছে। তবে আমি ব্যাক্তিগত ভাবে নিরপেক্ষ সাংবাদিকতা পেশাকে শ্রদ্ধা করি।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      গুজব ছড়ানোতে কোন পুরষ্কার চালু করলে- উনারা প্রথম প্রাইজটাই পেয়ে যাবেন।

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    গতকালের বক্তব্যের মাধ্যমে ঐক্যফ্রন্ট নেতা স্বরূপে-স্বচরিত্রে আত্মপ্রকাশ করলেন। এতে বিস্মিত হওয়ার কিছুই নেই।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      আমরা বিস্মিত হয়নি উনি সঠিকটাই বলতে চেয়েছেন।

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    ঐক্যফ্রন্ট এর কোন খবরই বিটিভি প্রচার করে না, কিন্তু ড.কামালের উত্তেজিত হবার বিষয়টি বিটিভি খুব ফলাও করে প্রচার করেছে!! হায় ‍বিটিভি!!

    • image

      md.mumun

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      এতে করে বিটিভির দর্শক জেনে গেল ঐক্যফ্রন্ট নামে কিছু একটা আছে।

  • image

    Md. Rabiul Islam

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    দেশের শীর্ষস্থানীয় একটি টেলিভিশন তাদের ফেসবুক পেজে সাংবাদিকদের উপর ড. কামালের চড়াও হওয়ার উপর একটি জরিপ পরিচালনা করে। প্রশ্নছিল "সাংবাদিকের উপর ড. কামালের ক্ষোভ প্রকাশ সমর্থন করেন কি ??" উত্তরছিল হ্যাঁ ও না। সেখানে ৩৩ হাজার মানুষ ভোট দেয়। ভোটের ফলাফল ছিল, সমর্থন করি অর্থাৎ হ্যাঁ ৮১% আর না ১৯%। সে ফলাফল পা‌ল্টে সন্ধ্যা ৭টার সংবাদে তা প্রচার কর‌ল হ্যা ৪৪% আর না ৫৬% !!! এবং সেই পোস্টটি পেজ থেকে সরিয়ে ফেলে তারা। এমন আচরণ সাংবাদিকতার কোন নৈতিকতার মানদণ্ডে পড়ে?? এমন সাংবাদিকতাকে আপনি কীভাবে শ্রদ্ধার চোখে দেখবেন, বিশ্বাস করবেন?? যারা সামান্য ফেসবুকে পরিচালিত একটা জরিপের ফলাফল পাল্টে দেয় নিজেদের মতকে প্রতিষ্ঠিত করতে, তারা কেমন আচরণ পাবার যোগ্য?

    • image

      মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      ঠিক যেভাবে ২০০১ সালের নির্বাচনে ১২ঃ৩০ পর্যন্ত সবগুলো আসনে আওয়ামীলীগ এগিয়ে থাকলেও ভোরের আলোতে ফলাফল পালটে গেল। এখনও অনেকে বলে ভোট দিলাম নৌকায় ধানের শীষ উঠলো কেমনে। এমনকি আমার কেন্দ্র আওয়ামিলগ সারাদিন দখল করে রেখেছিল সেও কেন্দ্রে ধানের শীষ জিতে গেল। --- ফলাফল পছন্দ না হলে পাল্টে দেওয়ার সংস্কৃতি বহু পুরাতন।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      মাসুদ, কোন ভোটের কথা বলছেন- ২০১৪ সালেরটার নাকি? কিছুটা অন্ততঃ ঘটে রাখা প্রতিটা মানুষেরই উচিৎ।

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    আমার সবাই জানি আসলে আমার কি। আমার জানি বঙ্গবন্ধু কন্যা চাইতে কেউ দেশকে বেশি ভালোবাসতে পারবেন না বা দেশ ভালো চালাতে পারবেন না। আমার জানি দশ বছর আগে আমরা কোথায় ছিলাম, এখন আমরা কোথায় আছি। আমরা এও জানি, কোন সরকার বিতর্কের উর্দ্ধে নয়। দল ক্ষমতায় থাকলে দলিও লোকজন সুযোগ নেবে। কেউ আকাশ থেকে নেমে আসা নাই। আমরা চাই দেশ প্রেমিক লোকজন দেশ ছিলাম। আমরা জানি সামনে থেকে নেতৃত্ব দিলে পিছন থেকে অনেকে অনেক কিছু বলবে। যারা নেতৃত্ব দেয় তাদের কে তা পজেটিভলি নিতে হবে। সামনে আগাতে হবে। নিশ্চয়ই তাদের গলা চেপে ধরা উচিত হবে না। ড. কামাল হোসেন একজন দেশ প্রেমিক। ইতিহাস সেটা বলে। নিশ্চয়ই উনি শ্রদ্ধায়। আমাদের উচিৎ নয় থাকে অসম্মান করা। আমরা চাই একটি স্বাধীন দেশে সবার কথা বলার সমান সুযোগ থাকবে। ভিন্নমতাবলম্বীর প্রতি সম্মান দেখানো সাবার কর্তব্য। আমরা জানি যেখানে বিরোধী দল থাকবে না সেখানে সঠিক নেতৃত্ব গড়ে উঠবে না। আমাদের উচিৎ নয় কারো মুখের ভাষা কেড়ে নেওয়া বা মত প্রকাশের স্বাধীনতা হরণ করা। জনাব কামাল হোসেন প্রবিন রাজনীতিবিদ। উনি উনার আদর্শের জায়গাই আছেন। সাথে কয়েকটা দল নিয়ে জোট করেছেন যেখানে জামায়াতের সরাসরি অংশগ্রহণ করে নাই। সাথে আছে বিএনপি আছে এবং এরা জামায়াত কে আশ্রয় দিয়েছে। সেটা আমরা জানি। আমরা এও জানি অতিতে বর্তমান সরকার জামায়াতের সাহায্য নিয়েছিল। জনাব কামাল হোসেন কে এই ভাবে প্রশ্ন করে বিব্রত করা উচিৎ হয়নি।

    • image

      md.mumun

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      হতে পারে, বঙ্গবন্ধুর কন্যা চাইতে কেউ দেশ ভালো চালাতে পারবে না। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর কন্যা চাইতে কেউ দেশকে বেশি ভালোবাসতে পারবে না, এই কথাটার সাথে একমত হতে পারলাম না। আপনি দেশকে সব থেকে বেশি ভালবাসুন না, কে মানা করেছে আপনাকে।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮

      ৩০০ আসনের সংসদে ড. কামালের দলের কোন আসন নেই, সবই ধানের শীষ এর। উনার নুন্যতম নিয়ন্ত্রণ নেই কিছুতেই। সবই কথার কথা।

  • image

    Joy Sarkar

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    ক্ষমা চাওয়ার সৎসাহস টা সবাই দেখাতে পারে না । কামাল হোসেন, কাদের সিদ্দীকীরা বেঁচে থাকতে কেউ খবর নেওয়ার প্রোয়োজন মনে করেন না, তাদের জন্য সংবাদকর্মীরা ব্যস্ত হবেন তারা শয্যাশ্যী হওয়ার পরে।

    • image

      zobair

      ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮

      ঠ্যালায় পড়লে ক্ষমা কেন, সে মানুষের পায়েও ধরবে! মইনুলের অবস্থা দেখছে না!?

  • image

    আবুল বাহার

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    ধান বানতে শিবের গীত গাইলেন জনাব। আপনাকে চেনা হয়েগেছে আমাদের।

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    খুবই দুঃখজনক যে এদেশের মানুষ উচিত কথা বলতে পারেনা যেখানে নির্বাচন কমিশনও ক্ষমতার পরিচয় প্রদর্শন করতে পারেনা। মানুষ এখন শুধু চায় একমুঠো ভাত আর নিরাপদে বেঁচে থাকতে তাই কেউ মন খুলে কথা বলার মতো সাহসিকতা কারোরই নেই, ধন্যবাদ আপনাকে আপনি সাংবাদিকদেরকে বলেছেন কিন্তু একবার ও কি ভাবেননি এগুলো কার বিরুদ্ধে বলছেন? তার পরিণতিইবা কি? জানিনা কেন এমন অবিচার এদেশে স্বার্থের জন্য এদেশের মুষ্টিমেয় মানুষই ১৬ কোটি মানুষের চোখে ধুলো দিয়ে নিজের স্বার্থ শুদ্ধিতে ব্যস্ত , এই ভিডিও বা এই নিউজটা এতো দ্রুত ইতিবাচকভাবে ছড়াচ্ছে কিন্তু আপনার গাড়িবহরে হামলার বেপারে নিউজটাতো এতো তাড়াতাড়ি ছড়ায়নি বা এতো হামলার ঘটনা ঘটছে তার সুষ্ঠূ কোনো ব্যবস্থাও নেয়া হচ্ছেনা। আর আপনার এভাবে রেগে যাওয়ার পেছনের কারণ কেউ খতিয়ে দেখবে বলে আমার মনে হয়না। তাই ১৬ কোটি মানুষের মতো আপনাকেও আজ নীরব ভূমিকায় থাকতে হবে এটাই বাস্তবতা।

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    ড কামাল সম্ভবত মইনুল হোসেনের ভাগ্য বরণ করতে যাচ্ছেন

  • image

    Tanvir Hossain Jony

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    দুঃখ প্রকাশের খবর ছেপেছেন হেডিং দিয়ে, কিন্তু টাকা নেয়ার কথা বলে সাংবাদিকের নৈতিকতা নিয়ে প্রশ্ন তোলা ও দেখে নেয়ার হুমকি দেয়ার সংবাদটি 'শিরোনাম' সহ করেননি কেনো? ক্ষমতায় আসার আগেই ডঃ কাহোদের আচরণ এমন, আসলে না জানি কি করে!

  • image

    Kabir

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    ডক্টর কামালের প্রতিটা বক্তব্য স্ববিরোধী। উনি বিএনপি জামাতকে সাথে নীয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়ন করবেন।

    • image

      md.mumun

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      এই স্ববিরোধী কথা যদি জনগন পছন্দ করে ভোট দেই, তাহলে কি আর করা?

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    উক্ত সাংবাদিক ভাইকে প্রশ্ন করতে চাই : আওয়ামী লীগ কেন রাজাকারের ( মেজর মান্নান) সাথে

  • image

    সা মো মছিহ্ রানা

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    এরপরও ড.কামাল হোসেনের দু:খপ্রকাশ তাঁর বিশালতার পরিচয় বহন করে।

  • image

    ataur

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    দু:খ প্রকাশ করা হচ্ছে ড. কামাল হোসেনের স্বভাবজাত ভদ্রতা ও ব্যক্তিত্বের বহি:প্রকাশ। তবে দেশের মানুষ তার দু:খ প্রকাশের জন্য নয়, অপেক্ষা করছিলো তাকে বিরক্ত করা সেই সাংবাদিকরা ক্ষমা চায় কি না সেজন্য। কিন্তু তারা তা করেনি, উল্টো কামাল হোসেন দু:খ প্রকাশ করে নিজেকে আরেকবার মানুষের কাছে চেনালেন। আপনার এই মানসিকতার জন্যই আপনাকে মানুষ সম্মান করে, শ্রদ্ধা করে। আপনার ওপরই মানুষের আস্থা।

    • image

      নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

      ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮

      আগেই মামলা হতে পরিত্রান পেতে এই পদক্ষেপ। নতুবা মইনুল হোসেন কেস হত এতক্ষনে।

  • image

    Sohel

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    দুঃখ প্রকাশ করলেই সব শেষ? ক্ষমা চান এবং জামায়াতকে নিয়ে কীভাবে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে চান তাও খুলে বলুন |

    • image

      md.mumun

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      সুষ্ঠ নির্বাচন হতে দিন। জবাবটা জণগনকে দিতে দিন।

    • image

      Sohel

      ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮

      জামায়াতকে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়ন করবে ঐক্যফ্রন্ট? সে গুড়ে বালি | দাঁতভাঙা জবাব পাবে এই ভণ্ডামির |

  • image

    Sohel

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    ঐক্যফ্রন্টের নামে একই প্রতীকে জামায়াতের সাথে নির্বাচন করতে পারেন আর জামায়াতকে নিয়ে অবস্থান পরিষ্কার করতে বললেই "খামোশ"!!!

    • image

      সোহাগ আহমেদ

      ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

      AL has no intention to banned JAMAT. They like use jamat as their weapon to attack opposition.

    • image

      Sohel

      ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮

      @সোহাগ: Don't you know that Jamayat has already lost its registration??

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    পৃথিবীকে সবসময় বদলে দিয়েছে লক্ষ্য সম্পর্কে দৃঢ় প্রত্যয়ী সঙ্ঘবদ্ধ মুষ্টিমেয় কিছু মানুষ। আমরা এদের একজন হবো।

  • image

    Saifur Sahin

    ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

    বিষয়টা এখানেই শেষ হবে না । সুবিধাভোগীরা এই নিজেদের সুবিধামত বিষয়টি নিয়ে কচলাবে যতটা সম্ভব !!

  • image

    Muminul Islam

    ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮

    চুপ করো। চুপ করো। খামোশ।

সব মন্তব্য