শপথের পর নিজ এলাকায় সাংসদ মোকাব্বির

প্রতিনিধি, সিলেট ১১ এপ্রিল, ২০১৯

মো. মোকাব্বির খানশপথ নেওয়ার পর প্রথমবারের মতো নির্বাচনী এলাকায় এসেছেন সিলেট-২ (ওসমানীনগর ও বিশ্বনাথ) আসনের সাংসদ মো. মোকাব্বির খান। করেছেন সুধী সমাবেশ।

গতকাল বুধবার অনুষ্ঠিত এ সমাবেশে সাংসদ বলেন, ‘যাঁরা আমাকে ভোট দিয়েছেন, তাঁরা সবাই আমার পরিবারের সদস্য। আগামী পাঁচ বছর সংসদে আপনাদের সুখ-দুঃখের কথা বলব। আমার কাছে সবার অধিকার সমান। আমি সবার সংসদ সদস্য।’

গতকাল দুপুরে ওসমানীনগর উপজেলার তাজপুর ইউনিয়ন পরিষদের আয়োজনে এই সুধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে সাংসদ প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন। মোকাব্বির খান গণফোরামের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য। ঐক্যফ্রন্টের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে উদীয়মান সূর্য প্রতীক নিয়ে তিনি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিজয়ী হন। ওই নির্বাচনে বিএনপি ছয়টি ও গণফোরাম দুটি আসন পায়। এরপর ঐক্যফ্রন্টের নির্বাচিত ব্যক্তিরা শপথ না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। এরপরও ২ এপ্রিল মোকাব্বির শপথ নেন।

গতকাল অনুষ্ঠিত সুধী সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন তাজপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ইমরান রব্বানী। বক্তব্য দেন বালাগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আবদাল মিয়া, ওসমানীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আতাউর রহমান, সিলেট মহানগর গণফোরামের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন, জেলা বিএনপির সদস্য জসিম উদ্দিন জুনেদ, কমরেড আফরোজ আলী, সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল হাই মোশাহিদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবদাল মিয়া, সমাজসেবক আবদুল ছালিক, এম এ মান্নান, ছুরাব আলী, দুদু মিয়া, ইউপি সদস্য শুকুর আলী প্রমুখ।

বক্তৃতায় মোকাব্বির খান বলেন, ‘ওসমানীনগর ও বিশ্বনাথ এই দুই উপজেলার উন্নয়নের জন্য আমি নিরলসভাবে কাজ করে যাব। উন্নয়নের কোনো টাকার প্রতি আমার লোভ-লালসা নেই। আপনাদের সঙ্গে নিয়ে যা করা জরুরি, সেটার গুরুত্ব বুঝে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ধারাবাহিক সব ধরনের উন্নয়ন করার চেষ্টা করব।’

বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে মোকাব্বির খান বালাগঞ্জ উপজেলার চান্দাইরপাড়া গ্রামের নিজ বাড়িতে যান। সেখানে তাঁর বাবা ফিরোজ খানের কবর জিয়ারত করেন। পরে তিনি স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন।

 

মন্তব্য

  • image

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

    ১১ এপ্রিল, ২০১৯

    Good job.

সব মন্তব্য